Building Inclusive Cultures

Building Inclusive Cultures


Photography competition and exhibition on freedom of religion or belief                                              

Drik Picture Library in partnership with Freedom of Religion or Belief (FoRB) Leadership Network and The Hunger Project Bangladesh call for a photography competition for Bangladeshi nationals and plan to host an exhibition.

The exhibition will take place at Drik Gallery, Dhaka, along with a mobile version on rickshaw vans to ply over Dhaka city to include marginalized viewers. An online virtual exhibition is also planned to attain a wider reach.

25 selected photographs will be exhibited, which include three winners. A panel of reputed jury members will make the selection, and a professional curator will design the exhibition. A couple of webinars to explain the contest theme are also planned prior to the submission deadline.


GUIDELINES

THEME

‘Building Inclusive Cultures’

Photography competition and exhibition on freedom of religion or belief

The idea behind the contest and the ensuing touring exhibition is not to talk so much about religion itself, but about the manifestation of religion and spirituality within society and cultures. We hope artists and photographers will unpack the human condition to explore what informs who we are: what unites us and what makes us unique within the narratives of Society, Self, Mortality, Nature and History. Inclusivity is not about demography, though demography may sometimes be a useful indicator.

We are not talking about who is in the room, but the body language in the room, the filters at the gate. About whether there is an open door with a welcome mat, or a metal grill with a photo of a snarling dog.

Think of the commonalities of religion. The values they uphold. Their attempt to guide people on the path of kindness and virtue. Think of visuals that reflect such values. While symbols and metaphors will exist in all religions to reflect their teachings, photographers should also go beyond overt references to specific religions, attempting to visualise the principles of love and tolerance that underpin most religions.

We look for the good and the bad, but really long to be surprised. Try to come up with images that conjure up in our minds the essentials of religious practice, and how they affect our lives. Specific examples might include the signage in places where certain groups are prohibited access. Drawing water in a well might only be for a privileged few. The caste system might prevent untouchable people from walking past certain upper-caste areas. Eating beef, or pork, or being vegetarian, could be a delicacy for some and taboo for others. Drinking wine could be a religious act for some and blasphemy for others. Are you free to speak out, or do you talk in whispers? Who fasts who doesn’t and how do those who fast view those who don’t? Do religious festivals unite or divide? Your work should do more than simply point out instances of the presence or lack of tolerance. Ideally, it should also provide pointers to good practice. Remember to bring in humour or satire, but avoid being insensitive and never, ever stoke hatred.

Music has its own language, but devotional songs, bhajans, qawalis and hymns often transcend religious barriers but might also become a mode of exclusion. Can rap be religious? The Ostad/Shagred (master/apprentice) relationship may require one to cross religious borders, to be guided by masters whose greatness takes them beyond conventional religious barriers.

Dance for many is a spiritual act. Performed in a religious space, or at a funky party, the same dance can have multiple meanings. It might even be a sacrificial act. Collectives might overcome the religious divides that separate us.

How does religion play out in sport. Are you allowed to play on Sabbath? What role does politics play? What about social media?

What about those who are not religious? Do state laws allow for such differences? How does one take an oath? Whom do people swear by? How do different religions respond to sexual differences? Is the need to conform equally strong in all religions? How do nation-states formulate curricula? Do jobs go to preferred religions or sects? Are people segregated in parks or marketplaces? Does intermarriage take place? What choice does a child have in choosing his/her religion?

Spiritual leaders talked about using metaphors like people and snakes sharing the same space when sheltering from floods. Of religious events being celebrations for all. Others talked of concepts like power structures and local politics, which are more difficult to visualise.

We need to be imagining a new world. The joy of inclusivity is in the plurality it embraces. It requires a leap of faith into a world unknown, and for that, we need to be able not only to receive but also to let go, of prejudices, zones of comfort, and sometimes the ground beneath our feet. For some, it can be scary, and it may require a lot of hand-holding. There may be scars that need healing.

A photographer makes a conscious choice in extracting a segment from what might be a chaotic visual space. The curator, too, makes a conscious choice in extracting from the wider body of work by a photographer or photographers to distil what she feels will make a statement consistent with the intended message.

These questions are meant to be starting points in your visual journey. We look for visually stunning, thought-provoking and informative imagery that enlightens us. Try not only to critique but also celebrate and inform. Through your use of light, space, and moment and with insightful and provocative content, we hope you, the photographer, will open doors to our minds and help transport us to a world free of prejudice.

WHO IS ELIGIBLE?

The competition is open to any Bangladeshi national

AWARDS

Grand prize winner: Tk 100,000

1st Runner-up: Tk 50,000

2nd Runner-up: Tk 25,000

Photographs selected for exhibition will receive certificates.

HOW TO SUBMIT

Entries must be submitted via the contest platform:

https://drik.awardsplatform.com/

SUBMISSION DEADLINE

22 September 2022

Entry Rules:

  1. The photographer(s) must be the author(s) of the pictures submitted in his/her/their name.
  2. Participants must provide the file(s) as recorded by the camera for all images (raw files) that proceed to the final stages of the contest. These file(s) will be requested and studied confidentially during judging stages. Failure to provide these files when requested will lead to the exclusion of the entry.
  3. Entries must be submitted via the official contest platform. Entries sent in other ways will not be accepted.
  4. Winning images along with selected images will be used for the production of the photo book and the exhibition. Pictures must meet the following specifications:
  • A participant can submit a maximum of 15 photograph. All photos must have accurate captions written in Bangla. Photographs may be in colour or black & white, with minimum 4000 pixels on longer side, jpeg format
  • Upload images with the original pixel size (unless cropped). Do not scale and do not change the resolution.
  • Photos taken by camera or mobile phone are allowed to participate.
  • The submission must be original. Photos with digitally manipulated content (removal, addition or alteration of elements) will not be accepted. Photographs with limited adjustment of contrast, brightness and the use of filters are allowed as long as they do not significantly alter the images.

Captions:

All pictures must have accurate captions, written in Bangla only, and contain all the information described in the guidance on captions.

The caption should have:

  • Describe who is in the photograph and what is going on within the photo.
  • Name the city, region or state, and country where the picture was made.
  • Provide the date the photo was made.
  • Provide information on relevant action not seen.
  • Why the photo is significant?

The caption will be edited and translated by professionals.

File name format: Applicant’s Name_Serial.jpg (Example: Ashraf Uddin_01.jpg, Ashraf Uddin_02.jpg)

Code of Ethics:

Entrants to the competition must ensure their pictures provide an accurate and fair representation of the scene they witnessed, so the audience is not misled. This means that entrants-

  1. Should be aware of the influence their presence can exert on a scene they photograph, and should resist being misled by staged photo opportunities.
  2. Must not pay their subjects, either in money or goods.
  3. Must maintain the integrity of the picture by ensuring there are no material changes to content.
  4. Must ensure captions are accurate.
  5. Must be open and transparent about the entire process through which their pictures are made, and be accountable to Drik Picture Library for their practice.
  6. Must ensure that no forms of harassment or exploitation was involved in the process leading up to and during the process of producing the photographs.

Notice

Copyright remains with photographers. By entering the contest, entrant represents, acknowledges and warrants that the submitted photograph is an original work created solely by the entrant, that the photograph does not infringe upon the copyrights, trademarks, rights of privacy, publicity or intellectual property rights of any person or entity and that no other party has any legal right, title or claim in the photograph. Any false information will disqualify the submission. Selected works may be used in the awareness campaigns through online, print or electronic platforms. Conditions described in the entry guideline are binding, the organisers reserve the right to refuse or exclude any entry at its own discretion.


সর্বজনের সংস্কৃতি নির্মাণ

ধর্ম বা বিশ্বাসের স্বাধীনতা নিয়ে আলোকচিত্র প্রতিযোগিতা এবং প্রদর্শনী                                               

ফ্রিডম অফ রিলিজন অর বিলিফ (এফওআরবি) লিডারশিপ নেটওয়ার্ক এবং ইয়ুথ এন্ডিং হাঙ্গার এর সহযোগিতায় দৃক পিকচার লাইব্রেরি বাংলাদেশী নাগরিকদের জন্য একটি আলোকচিত্র প্রতিযোগিতার আহ্বান করছে এবং একটি প্রদর্শনী আয়োজন করার পরিকল্পনা করেছে।  

প্রদর্শনীটি হবে ঢাকার দৃক গ্যালারিতে, সেই সাথে রিকশা ভ্যানের উপর একটি ভ্রাম্যমাণ সংস্করণ চলবে যাতে করে ঢাকা শহরজুড়ে ঘুরে বেড়িয়ে প্রান্তিক দর্শকদের দেখানো যায়। আরও বিস্তৃত পরিসরে ছড়ানোর জন্য একটি অনলাইন ভার্চুয়াল প্রদর্শনীরও পরিকল্পনা করা হচ্ছে।  

আলোকচিত্রীদের ২৫ টি নির্বাচিত কাজ প্রদর্শিত হবে, যার মধ্যে তিনজন বিজয়ী থাকবেন। স্বনামধন্য জুরি সদস্যদের একটি প্যানেল ছবি বাছাই করবেন, এবং একজন পেশাদার কিউরেটর প্রদর্শনীটির নকশা করবেন। জমা দেয়ার শেষ তারিখের আগে কয়েকটি ওয়েবিনার আয়োজন করারও পরিকল্পনা রয়েছে যাতে করে প্রতিযোগিতার থিমটিকে ব্যাখ্যা করা যায়।  


নীতিমালা

প্রতিযোগিতার বিষয়

সর্বজনের সংস্কৃতি নির্মাণ

ধর্ম বা বিশ্বাসের স্বাধীনতা নিয়ে আলোকচিত্র প্রতিযোগিতা এবং প্রদর্শনী

খোদ ধর্মকে নিয়ে বেশি কথা না বলেও কিভাবে সমাজ ও সংস্কৃতিতে ধর্ম ও আধ্যাত্মিকতাকে দেখা হয় সেটি তুলে ধরার ভাবনা থেকেই এই প্রতিযোগিতা ও আসন্ন ভ্রাম্যমাণ প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। আমরা আশা করি শিল্পী ও আলোকচিত্রীরা মানুষের যে অবস্থাগুলো তুলে ধরবেন তার মধ্য দিয়ে অনুসন্ধান চলবে সেই সব জিনিসের যেগুলো আমাদের বলে দেয় যে আমরা কারা: কোন জিনিসটি আমাদের একতাবদ্ধ করে এবং কোন জিনিসটি সমাজ, আত্মস্বত্ত্বা, নৈতিকতা, প্রকৃতি ও ইতিহাসের বয়ানগুলোর মধ্যে থেকে আমাদেরকে আলাদা করে তোলে। অন্তর্ভুক্তি নিছক জনমিতির বিষয় নয়, যদিও জনমিতি কখনো কখনো একটি দরকারী সূচক হতে পারে।

ঘরের ভেতর কারা আছে সেটা নিয়ে আমরা কথা বলছি না, বরং কথা বলছি ঘরের ভেতরকার শরীরী ভাষা নিয়ে, কোন ছাঁকনীগুলোর মধ্য দিয়ে ঘরে প্রবেশ করতে হয় সেটা নিয়ে। সেখানে কি একটা স্বাগতম লেখাসহ একটা খোলা দরজা? নাকি সেখানে রয়েছে দাঁত বের করা কুকুরের ছবিসহ একটা ধাতব গ্রিল? – কথা বলছি সেসব নিয়ে।

ধর্মের সাধরণ মিলগুলোর কথা ভাবুন। সেগুলো যেসব মূল্যবোধকে ধারণ করে তার কথা ভাবুন। দয়া ও নৈতিক উৎকর্ষতার পথে মানুষকে দিকনির্দেশনা দিতে সেগুলোর প্রচেষ্টাগুলোর কথা চিন্তা করুন। সেই সব দৃশ্যগুলোর কথা ভাবুন যেগুলো এমন মূল্যবোধগুলোকে প্রতিফলিত করে। সব ধর্মেই তাদের শিক্ষাগুলোকে প্রতিফলিত করার জন্য প্রতীক ও রূপকের অস্তিত্ব থাকলেও, আলোকচিত্রীদের অবশ্য উচিত হবে সুনির্দিষ্ট ধর্মের প্রকাশ্য উল্লেখকে ছাপিয়ে যাওয়া, চেষ্টা করা যাতে ভালোবাসা এবং সহনশীলতার মূলনীতিগুলোকে দেখতে পাওয়া যায়, যেগুলো বেশিরভাগ ধর্মেরই ভিত্তি।

আমরা ভাল এবং কিন্তু আমরা তো বসে থাকি অবাক হবার আশায। সেই সব ছবি নিয়ে আসার চেষ্টা করুন যেগুলো আমাদের মানসপটে ভাসিয়ে তোলে ধর্মীয় আচারগুলো কিভাবে আমাদের জীবনে প্রভাব ফেলে। সুনির্দিষ্ট উদাহরণ হতে পারে সেই সব জায়গার চিহ্নগুলো যেখানে কোন নির্দিষ্ট গোষ্ঠীর মানুষের প্র্রবেশাধিকার নেই। কুয়া থেকে পানি তোলার অধিকার হয়তো কেবল অল্প কিছু সুবিধাভোগীর জন্য। বর্ণ প্রথার কারণে হয়তো দলিতেরা সুনির্দিষ্ট উচ্চ বর্ণ অধ্যুষিত এলাকা দিয়ে যেতে পারছেন না। গরু, অথবা শুকরের মাংস খাওয়া, কিংবা নিরামিষাশী হওয়া, কারও জন্য হতে পারে উপাদেয় আবার অন্যদের জন্য নিষিদ্ধ। কারও কাছে হয়তো মদ খাওয়া একটি ধর্মীয় আচার আবার অন্যদের জন্য সেটা ধর্মদ্রোহীতার সামিল। আপনি কি কথা বলার ক্ষেত্রে স্বাধীন, নাকি আপনি কথা বলেন ফিসফিসিয়ে? কারা উপোস করছেন, কারা করছেন না এবং উপোসকারীরা যারা উপোস করছেন না তাদেরকে কোন দৃষ্টিতে দেখছেন? ধর্মীয় উৎসবগুলো কি মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করছে নাকি বিভাজিত? আপনার কাজটি স্রেফ অসহনশীলতার উদাহরণ তুলে ধরার থেকে আরও বেশি কিছু হওয়া উচিত। আদর্শভাবে বলতে গেলে, ভাল অনুশীলনগুলোকেও এটির তুলে ধরা উচিত। হাস্যরস এবং পরিহাসের কথা স্মরণে রাখবেন, কিন্তু অসংবেদনশীল হওয়াকে এড়িয়ে চলবেন এবং কখনোই ঘৃণার আগুনে ঘি ঢালবেন না।  

সুরের নিজস্ব ভাষা আছে, তবে বর্জনীয় না হয়েও ভক্তিমূলক গান, ভজন, কাওয়ালি এবং স্তবগীতিগুলো প্রায়ই ধর্মীয় সীমারেখাগুলোকে অতিক্রম করে। র‌্যাপ গান কি ধর্মীয় হতে পারে? ওস্তাদ-সাগরেদ সম্পর্কের জন্য কারো হয়তো দরকার ধর্মীয় সীমারেখাগুলোকে অতিক্রম করা, দরকার হতে পারে ওস্তাদের নির্দেশিত পথে চলার, যার মহানুভবতা তাদের নিয়ে যায় প্রথাগত ধর্মীয় বাধার বাইরে।  

অনেকের জন্য নৃত্য হল একটি আধ্যাত্মিক ক্রিয়া। একই নৃত্যের একাধিক অর্থ থাকতে পারে, পরিবেশিত হতে পারে একটি ধর্মীয় স্থানে, অথবা একটি উচ্ছল পার্টিতে। এটি হতে পারে একটি উৎসর্গমূলক ক্রিয়া। সমষ্টি হয়তো সেই সব ধর্মীয় বিভাজনকে কাটিয়ে উঠতে পারে যেগুলো আমাদের আলাদা করে দেয়। 

খেলাধূলার ক্ষেত্রে ধর্ম কিভাবে ক্রিয়াশীল? আপনি কি সাবাথের দিন খেলার অনুমতি পান? রাজনীতি কি ভূমিকা রাখে? আর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিষয়টাই বা কি?

যারা ধার্মিক নন তাদের ব্যাপারে কি? রাষ্ট্রের আইন কি এমন পার্থক্যকে অনুমোদন করে? কিভাবে একজন স্রষ্টার নামে শপথ নেন? কার নামে মানুষ দিব্যি দেন? লৈঙ্গিক বিভাজনের ক্ষেত্রে বিভিন্ন ধর্ম কিভাবে সাড়া দেয়? বাধ্যগত হওয়ার প্রয়োজনীয়তাটি কি সব ধর্মেই সমানভাবে শক্তিশালী? জাতি-রাষ্ট্রগুলো কিভাবে পাঠ্যক্রম প্রণয়ন করে? কাজের সুযোগগুলো কি পছন্দের ধর্ম বা গোষ্ঠীর কাছেই যায়? মানুষ কি মাঠেঘাটে কিংবা বাজারে আলাদা আলাদা থাকে? অসবর্ণ বিবাহ কি হয়? নিজের ধর্ম বাছাই করার ক্ষেত্রে একজন শিশুর সামনে কোন বিকল্পটি থাকে?

আধ্যাত্মিক নেতারা কথা বলেছিলেন রূপকের আশ্রয় নিয়ে যে বন্যার হাত থেকে বাঁচতে মানুষ ও সাপ কিভাবে একই জায়গায় আশ্রয় নিয়েছিল। বলেছিলেন ধর্মীয় ঘটনাগুলো সকলের উদযাপনের বিষয় হওয়া নিয়ে। অন্যরা কথা বলেছিলেন ক্ষমতা কাঠামো, স্থানীয় রাজনীতির ধারণাগুলোকে নিয়ে, যেগুলোকে দেখতে পাওয়া আরও কঠিন।

আমাদের দরকার একটি নতুন দুনিয়া কল্পনা করতে পারা। অন্তর্ভুক্তির আনন্দটি এর বহুত্বের আলিঙ্গনে প্রোথিত। এর জন্য দরকার অজানা দুনিয়াতে একটি বিশ্বাসের পদক্ষেপ ফেলা, আর তার জন্য, আমাদের সক্ষম হতে হবে কেবল গ্রহণ করতেই নয়, বরং ছেড়ে দিতে, আমাদের সংস্কার, আমাদের আরামের জায়গা, আর কখনো কখনো আমাদের পায়ের নিচের মাটি। কিছু মানুষের জন্য, এটি হতে পারে ভয়ের, তাদের হাত ধরে এগিয়ে নিয়ে যাবার প্রয়োজন হতে পারে। সেখানে ক্ষতও থাকতে পারে যেগুলোর শুকানো প্রয়োজন।

একটি অগোছালো দৃশ্য থেকে একটা অংশ কেটে বের করার ক্ষেত্রে একজন আলোকচিত্রী একটি সচেতন বাছাই করেন। একজন কিউরেটরও একজন আলোকচিত্রী বা আলোকচিত্রীদের কাজের বিস্তৃত পরিসর থেকে একটা অংশ বের করে আনার ক্ষেত্রে একটি সচেতন বাছাই করেন যাতে করে তিনি কি অনুভব করেন সেটি অন্তর্নিহিত বার্তার সাথে পরিস্কারভাবে সঙ্গতিপূর্ণ হয়। 

এই প্রশ্নগুলো আপনার চাক্ষুষ যাত্রার প্রারম্ভিক বিন্দু হওয়ার জন্য। আমরা দৃশ্যগতভাবে মনোমুগ্ধকর, চিন্তা-উদ্রেককারী, আর তথ্যবহুল ছবির জন্য তাকিয়ে আছি যেগুলো আমাদের আলোকিত করবে। কেবল সমালোচনা করার চেষ্টা করবেন না বরং অবশ্যই উদযাপন করুন এবং জানান। আপনার আলো, জায়গা, আর মুহূর্তের ব্যবহার, আর অন্তর্দৃষ্টিপূর্ণ ও উসকে দেয়া বিষয়বস্তু নিয়ে, আমরা আশা করি আপনি, একজন আলোকচিত্রী, আমাদের মনের দরজাগুলো খুলে দিবেন এবং সংস্কারমুক্ত একটি দুনিয়াতে আমাদের নিয়ে যেতে সাহায্য করবেন।  

কারা ছবি জমা দিতে পারবেন?

প্রতিযোগিতাটি যেকোন বাংলাদেশী নাগরিকের জন্য উন্মুক্ত



পুরস্কার

শ্রেষ্ঠ পুরস্কার: ১,০০,০০০ টাকা

১ম রানার-আপ: ৫০,০০০ টাকা

২য় রানার-আপ: ২৫,০০০ টাকাযেসব আলোকচিত্রীর ছবি প্রদর্শনীর জন্য নির্বাচিত হবে তারা সনদপত্র পাবেন

কিভাবে জমা দিতে হবে

ছবি অবশ্যই নিচে দেয়া প্রতিযোগিতার অনলাইন প্লাটফর্ম এর মাধ্যমে জমা দিতে হবে

https://drik.awardsplatform.com/

জমা দেয়ার তারিখ: ২২ সেপ্টেম্বর ২০২২

জমা দেয়ার নিয়মাবলী

১. আলোকচিত্রীর জমা দেয়া ছবিটি অবশ্যই আলোচিত্রীর নিজের তোলা হতে হবে

২. নির্বাচিত ছবিসহ পুরস্কারপ্রাপ্ত ছবিগুলো একটি ছবির বই এবং প্রদর্শনীতে ব্যবহৃত হবে। ছবিগুলোর অবশ্যই নিচের শর্তগুলো পূরণ করতে হবে:

·      একজন অংশগ্রহণকারী সর্বোচ্চ ১৫টি ছবি জমা দিতে পারবেন। সকল ছবির সাথে অবশ্যই যথাযথ বাংলা ক্যাপশন থাকতে হবে। ছবি রঙিন অথবা সাদাকালো হতে পারে, চওড়া পার্শ্বে সর্বোচ্চ ৪০০০ পিক্সেল, জেপিইজি ফরম্যাটে হতে হবে।

·      মূল পিক্সেল সাইজ ঠিক রেখে ছবি আপলোড করুন (যদি না ক্রপ করা হয়)। স্কেল করবেন না এবং রেজুলেশন পরিবর্তন করবেন না।

·      ক্যামেরা বা মোবাইল ফোনে তোলা ছবি জমা দেয়া যাবে।

·      জমা দেয়া ছবি অবশ্যই মূল ছবি হতে হবে। ডিজিটাল মাধ্যমে বিকৃত করা কোন কিছু (অপসারণ, যুক্ত করা অথবা উপাদানের অদল বদল করা) গৃহীত হবে না। যতটুকু পর্যন্ত মূল ছবিটির কোন তাৎপর্যপূর্ণভাবে পরিবর্তন না ঘটে ততটুকু পর্যন্ত সীমিত পরিসরে কনট্রাস্ট, ব্রাইটনেস পরিমার্জন এবং ফিল্টার ব্যবহার করা যাবে।

৩. প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্যায়ে যাওয়ার পর অংশগ্রহণকারীদের অবশ্যই সকল ছবির জন্য ক্যামেরা রেকর্ডকৃত মূল ফাইল সরবরাহ করতে হবে। এই ফাইলগুলোকে বিচার পর্যায়ে চাওয়া হবে এবং গোপনীয়তার সাথে সেগুলোকে পরীক্ষা করে দেখা হবে। যখন চাওয়া হবে তখন এই ফাইল সরবরাহ করতে ব্যর্থ হলে জমাকৃত ছবি বাতিল বলে গণ্য হবে।

৪. ছবি অবশ্যই জমা দিতে হবে প্রতিযোগিতার অনলাইন প্ল্যাটফর্মে। অন্য কোন উপায়ে পাঠানো ছবি গৃহীত হবে না। 

ক্যাপশন:

সকল ছবির যথাযথ ক্যাপশন থাকতে হবে, ভাষা হবে কেবল বাংলা, আর তার মধ্যে ক্যাপশনের নির্দেশনায় যা যা আছে তার সবকিছু থাকতে হবে।

ক্যাপশনের মধ্যে যা থাকতে হবে

  • ছবিতে কে আছেন এবং ছবিতে কি ঘটতে দেখা যাচ্ছে।
  • শহর, অঞ্চল অথবা রাজ্য, এবং দেশের নাম যেখানে ছবিটি তোলা হয়েছে।
  • ছবি তোলার তারিখ
  • ছবিতে প্রাসঙ্গিক যেসব কর্মকান্ড দেখা যাচ্ছে না সেই বিষয়ের তথ্য কেন ছবিটি তাৎপর্যপূর্ণ?

পেশাদারদের দিয়ে ক্যাপশনগুলো সম্পাদনা এবং অনুবাদ করা হবে।

ফাইলের নামের ফরম্যাট:

participants name_serial number.jpg (Example: Ashraf Uddin_01.jpg, Ashraf Uddin_02.jpg)

নৈতিক নিয়মাবলী:

প্রতিযোগিতায় ছবি জমাদানকারীরা অবশ্যই এটা নিশ্চিত করবেন যে তাদের ছবিটি তারা যা দেখেছিলেন সেই বিষয়টিকে যথাযথ এবং সৎভাবে তুলে ধরেছে, যাতে করে দর্শক বিভ্রান্ত না হন। এর মানে হল এই যে জমাদানকারীদেরকে-

 ১. তাদের উপস্থিতি কোন দৃশ্যের উপর যে প্রভাব ফেলে সে বিষয়ে সতর্ক হতে হবে, এবং সাজানো ছবি তোলার সুযোগ নিয়ে বিপথগামী হওয়াকে প্রতিহত করতে হবে।

২. তারা যাদের ছবি তুলছেন তাদের কোন টাকা বা কোন কিছু দেয়া যাবে না।

৩. ছবির বিশ্বস্ততা বজায় রাখতে হবে এটা নিশ্চিত করার মাধ্যমে যে এর ধারণকৃত উপাদানগুলোর মধ্যে কোন বস্তুগত পরিবর্তন করা হয়নি।

৪. অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে যে ক্যাপশনগুলো যথাযথ হয়েছে।

৫. অবশ্যই তাদের ছবি তোলার পুরো প্রক্রিয়াটি সম্পর্কে খোলামেলা এবং স্বচ্ছ হতে হবে, এবং তাদের অনুশীলনটির ব্যাপারে দৃক পিকচার লাইব্রেরির কাছে জবাবদিহি করতে বাধ্য থাকবে।

৬. অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে যে ছবি তোলার সময় কোন ধরনের হয়রানি বা বাড়তি সুবিধা নেয়া হয়।

 

নোটিশ:

ছবির স্বত্বাধিকার আলোকচিত্রী কর্তৃক সংরক্ষিত। প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের মাধ্যমে প্রতিযোগী এই মর্মে ঘোষনা, ব্যক্ত ও নিশ্চিত করছে যে, জমাদানকৃত আলোকচিত্রটি শুধুমাত্র প্রতিযোগীর দ্বারাই তোলা একটি মৌলিক কাজ এবং ছবিটি কোন ব্যক্তি কিংবা সংস্থার স্বত্বাধিকার, গোপনীয়তার অধিকার, প্রচার বা মেধাস্বত্ব অধিকার লংঘন করে না এবং ছবিটিতে অন্য কোন পক্ষের কোন প্রকার আইনী অধিকার, দাবী কিংবা স্বত্ব নেই। মিথ্যা তথ্য প্রদান করলে জমাদান বাতিল হয়ে যাবে। নির্বাচিত ছবিগুলো অনলাইন, প্রিন্ট অথবা ইলেকট্রনিক প্লাটফর্মে সচেতনতামূলক প্রচারে ব্যবহৃত হতে পারে। প্রতিযোগিতায় প্রবেশের বর্ণিত নীতিমালা মানা বাধ্যতামূলক, আয়োজকেরা চাইলে স্বীয় বিবেচনা অনুযায়ী যেকোন প্রতিযোগীকে প্রত্যাখান অথবা বাদ দিতে পারেন।


Apply Here



For further information please contact:

Parvez Ahmad

Contest Coordinator

parvez@drik.net, +8801737758800



2022 ©Drik, Design & Developed by Decode Lab